পুদিনা পাতার গুণাবলি

পুদিনা পাতার গুণাবলি

পুদিনা ( Lamiaceae0 পরিবারের অন্তর্গত এক প্রকারের গুল্মজাতীয় উদ্ভিদ যা প্রাচীন কাল থেকে বহুবিদ রোগের ঔষদ হিসাবে ব্যাবহার হয়ে আসছে, এর ইংরেজি নাম Spearmint এবং বৈজ্ঞানিক নাম (Mentha spicata))। 

খুব সহজেই মাটিতে বা টবে ঔষুধি পইদিনার চাষ করা যায়। 

এবার জেনে নেওয়া যাক পুদিনা পাতার ঔষধি গুণাবলি /

পুদিনা পাতার উপকারিতা:


★ পেটের ব্যথা,বদ হজম,মুখের অরুচি ও গ্যাসের সমস্যা, দীর্ঘ দিনের আমাশয়, ভুগছেন? প্রতিদিন ৬/৭টি তাজা পুদিনা পাতা চিবিয়ে, অথবা এর রস পান করুন,এর মধ্যে থাকা অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট এবং ফাইটোনিউট্রিয়েন্টসের চমৎকার গুণাবলি আপনার পেটের অসুখ দ্রুত সেরে তুলবে। 

★যাদের কোষ্ঠ্যকাঠিন্য আছে, পুদিনা পাতার রস ২ চা চামচ,কাগজি লেবুর রস ৮-১০ ফোটা এবং হালকা লবন গরম পানিতে মিশিয়ে সকাল বিকাল ১ সাপ্তাহ পান করুন, কোষ্ঠ্যকাঠিন্য থেকে মিলবে চির মুক্তি।

★বাতের ব্যাথা, জয়েন্টে ব্যথায় পুদিনা পাতা বেটে প্রলেপ দিলে এর রস খুব দ্রুত চামড়ার ভেতর দিয়ে নার্ভে পৌঁছে নার্ভ শান্ত করে ব্যাথা উপশম করে।

★এই গরম মৌসুমে নিয়মিত পুদিনার সরবত পান করুন, এতে আপনা কর্মক্ষমতা বৃদ্বি ও শরীর ঠান্ডা থাকবে। 

★কোথাও কেটে গেলে বা আঘাতপ্রাপ্ত হলে পুদিনার প্রলেপ লাগিয়ে দিন, ত্বকের সংক্রমণ ঠেকাতে ইহা অ্যান্টিবায়োটিক হিসাবে কাজ করবে। 

পুদিনার মধ্যে থাকা অ্যাস্ট্রিঞ্জেন্ট গুণ অতুলনীয়,এর গরম জল পানিতে মিশিয়ে গোসল করলে ঘামাচি ও অ্যালার্জি থেকে মুক্তি পাওয়া যায়। 
 
★ ব্রণ ও ত্বকের তৈলাক্তভাব কমাতে নিয়মিত তাজা পুদিনাপাতা বেটে ত্বকে লাগান এতে ত্বক হবে মসৃণ ও কমল। 

পুদিনার ছাইয়ের মাজন দিয়ে দাত মাজলে, দাত শক্ত ও মাড়ি সুস্থ থাকে।

★ কফ ও কাশির চিকিৎসায় পুদিনা, তুলসী ও আদার রসের সাথে মধুর মিশ্রণ প্রাচীন কাল থেকে ব্যাবহার হয়ে আসছে।

★ নিয়মিত পুদিনা পাতার রস পান করলে রক্তে কলেস্টরেল জমতে বাধা সৃষ্টি করে ফলে উচ্চ রক্তচাপ নিয়ন্ত্রণে থাকে এবং হার্ট ও মস্তিস্ক রাখে সুস্থ

★মাথা ব্যথা ও মাইগ্রেনের ব্যাথা থেকে মুক্ত পেতে নিয়মিত পুদিনা পাতা চা পান করুন।হঠাৎ অজ্ঞান বা চেতনা লোপ পেলে রোগীর নাকের কাছে পুদিনা পাতা ধরে রাখুন দেখবেন দ্রুত সেন্স ফিরে আসবে।

পুদিনা পাতার মধ্যে থাকা পেরিলেল অ্যালকোহল ক্যান্সারের কোষ বৃদ্ধিতে বাঁধা সৃষ্টি করে, ক্যান্সার প্রতিরোধ করে। 

একটি মন্তব্য পোস্ট করুন

0 মন্তব্যসমূহ