লো প্রেসারের কারণ : লো প্রেসারের লক্ষণ : হঠাৎ লো প্রেসার হলে করণীয়

লো প্রেসারের কারণ : নিম্ন রক্তচাপের লক্ষণ : হঠাৎ লো প্রেসার হলে করণীয়:

শরীরে রক্ত প্রবাহের পরিমাণ কমে গেলে নিম্ন রক্তচাপের বা লো প্রেসারের সমস্যা হয়। একে হাইপোটেনশন বা লো ব্লাড প্রেশারও বলা হয়।লো প্রেসার থেকে কখনো কখনো স্ট্রোক, হার্ট অ্যাটাক ও কিডনি ফেইলিউরের মতো ঘটনা ঘটে। 

জাতীয় হৃদরোগ হাসপাতালের সহযোগী অধ্যাপক মু. সালাউদ্দিন বলেন, সাধারণত সিস্টোলিক রক্তচাপ ৯০ মি. মি. মার্কারি ও ডায়াস্টোলিক রক্তচাপ ৬০ মি. মি. মার্কারির নিচে হলে তাকে নিম্ন রক্তচাপ বলা হয়।

লো প্রেসারের কারণসমুহ:
অথবা নিম্ন রক্তচাপের কারণসমুহ:
১) থাইরয়েডের সমস্যার কারণে শরীরে হরমোনের ভারসাম্যহীনতা দেখা দিলে লো প্রেসারে আক্রান্ত হতে পারে।

২)অতিরিক্ত রক্তপাত বা রক্তক্ষরণ হওয়ার কারণে শরীরে রক্তশূন্যতা দেখা দিলে লো প্রেসারে আক্রান্ত হতে পারে

৩)লিভারের অসুখ, হজমে দুর্বলতা, বাত, হার্ট অ্যাটাক ইত্যাদির কারণে।

৪) কোনো দীর্ঘমেয়াদি রোগ বা কোন ওষুধের পার্শ্বপ্রতিক্রিয়ার কারণে।

৫) মানসিক অস্থিরতা ও দুশ্চিন্তার কারণে লো প্রেসারে আক্রান্ত হতে পারে

৬) গর্ভকালীন সময়ে সময়মতো ও পরিমাণ মতো না খেলে।

লো প্রেসারের লক্ষণ :
অথবা নিম্ন রক্তচাপের লক্ষণ :
১) মাথা ঘোরা ও চোখে ঘোলা দেখা।
২) রোগীর অস্বাভাবিক দ্রুত হূৎস্পন্দন হতে পারে ও তাঁকে স্বাভাবিকের তুলনায় দ্রুত শ্বাস-প্রশ্বাস নিতে দেখা যায়।
৩) শরীরে প্রচণ্ড দুর্বল লাগে এবং অল্পতেই হাঁপিয়ে উঠার প্রবনতা দেখা দেয়। বসা বা শোয়া থেকে হঠাৎ উঠে দাঁড়ালে শরীরে ভারসাম্যহীনতা পরিলক্ষিত হয়।
৪(কোন নির্দিষ্ট কারণ ছাড়াই প্রচণ্ড মাথা ব্যাথা হতে পারে।
৫) দীর্ঘদিন যাবত রোগী ডায়রিয়ার সমস্যায় ভুগতে পারে।
 চিকিৎসা:
৬)অনিয়মিত হার্টবিট অর্থাৎ হার্টবিট রেট উঠানামা করতে পারে।

হঠাৎ লো প্রেসার হলে করণীয়:
অথবা  হঠাৎ নিম্ন রক্তচাপ হলে করণীয়:
কারো হয়তো হঠাৎ নিম্ন রক্তচাপ ধরা পড়লে তাত্ক্ষণিকভাবে সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ বিষয় হলো, তাকে পানীয় জাতীয় কিছু খেতে দেওয়া। যত দ্রুত সম্ভব তার শরীরে পর্যাপ্ত ফ্লুইড বা জলীয় পদার্থ প্রবেশ করাতে হবে। এধরণের পরিস্থিতিতে তাকে ডাব, স্যালাইন, চা, পানি, দুধ বা অন্য যেকোন তরল খাবার খাওয়াতে হবে। কিছুক্ষণ পর দেখা যাবে, রক্তচাপ স্বাভাবিক হয়ে আসছে।

আরও পড়ুন: 

একটি মন্তব্য পোস্ট করুন

0 মন্তব্যসমূহ