উচ্চ রক্তচাপ নিয়ন্ত্রণে রাখার উপায়

 

উচ্চ রক্তচাপ নিয়ন্ত্রণে রাখার উপায়

প্রতি বছর বিশ্বব্যাপী উচ্চ রক্তচাপের কারণে ১০০ মিলিয়ন মানুষের প্রাণহানি ঘটে।কোন কারণে উচ্চ রক্তচাপ বেড়ে গেলে হৃদরোগ বা স্ট্রোকের আশঙ্কা বাড়তে পারে। তাই ৪০ পেরোনোর পর থেকেই সাবাত নিয়মিত ব্লাড প্রেসার মাপা দরকার। একাধিক গবেষণায় দেখা গেছে, মানসিক চাপ এবং অস্বাস্থ্যকর জীবনযাপনের ফলে ২০-৩০ বছর বয়সীদের মধ্যেও বাড়ছে হাইপার টেনশনে আক্রান্ত হওয়ার প্রবণতা।

একবার উচ্চ রক্তচাপ শনাক্ত হলে, তা নিয়ন্ত্রণে না আনলে পরে মারাত্মক ক্ষতি হতে পারে। যদিও রক্তচাপ কমাতে চিকিৎসকরা রোগীকে বিভিন্ন ওষুধ সেবনের পরামর্শ দেন। তবে চাইলে ঘরোয়া উপায়েও উচ্চ রক্তচাপ নিয়ন্ত্রণ করতে পারবেন। 
আরো পড়ুন:
 উচ্চ রক্তচাপ নিয়ন্ত্রণ রাখার উপায় 

খাদ্য তালিকা থেকে কার্বোহাইড্রেটের পরিমাণ কমিয়ে:

সাম্প্রতিক বিভিন্ন গবেষণার তথ্য অনুযায়ী, কার্বস ও চিনি উচ্চ রক্তচাপ বাড়ায়। তাই কার্বোহাইড্রেটজাতীয় খাবার রক্তচাপের মাত্রা নিয়ন্ত্রণে সাহায্য করে। রুটি ও সাদা চিনির মতো খাবার রক্তে শর্করার মাত্রা বাড়িয়ে দেয়। এজন্য উচ্চ রক্তচাপের যারা ভুগছেন তারা অবশ্যই লো-কার্ব ডায়েট অনুসরণ করবেন। সাদা চিনি, ময়দাসহ বিভিন্ন প্রক্রিয়াজাতকরণ খাবার পরিহার করুন।

ডায়াবেটিস নিয়ন্ত্রণ :

যাদের ডায়াবেটিস আছে, তা অবশ্যই নিয়ন্ত্রণ করতে হবে।

অতিরিক্ত ওজন কমাতে হবে :

খাওয়াদাওয়া নিয়ন্ত্রণ করতে হবে ও নিয়মিত ব্যায়াম করতে হবে। একবার লক্ষ্য অনুযায়ী ওজনে পৌঁছলে সীমিত আহার করা উচিত এবং ব্যায়াম অব্যাহত রাখতে হবে। 

অ্যালকোহল গ্রহণ ও ধূমপান ত্যাগ করে:

সিগারেট এবং অ্যালকোহল উভয়ই উচ্চ রক্তচাপ বাড়িয়ে দেয়। অ্যালকোহল ও নিকোটিন সাময়িকভাবে রক্তচাপের মাত্রা বাড়িয়ে রক্তনালীর ক্ষতি করতে পারে। যেহেতু এ দু’টি উপাদনই স্বাস্থ্যের ক্ষতি করে তাই এগুলো ত্যাগ করাই ভালো।
মানসিক ও শারীরিক চাপ সামলাতে হবে :

নিয়মিত বিশ্রাম, সময়মতো ঘুমানো, শরীরকে অতিরিক্ত ক্লান্তি থেকে বিশ্রাম দিতে হবে।

খাদ্য তালিকায় থেকে সোডিয়াম কমিয়ে দিয়ে:

বেশ কয়েকটি গবেষণায় দেখা গেছে, অতিরিক্ত সোডিয়াম গ্রহণ স্ট্রোকের কারণ হতে পারে। শুধু উচ্চ রক্তচাপের রোগীদের জন্যই নয় বরং সুস্থ থাকতে সবারই উচিত লবণযুক্ত প্রক্রিয়াজাত খাবার পরিহার করা। দিনে ২,৩০০ মিলিগ্রামের বেশি লবণ গ্রহণ করা উচিত নয়

খাদ্য তালিকায় পটাসিয়াম যুক্ত খাবার যোগ করে:

যারা উচ্চ রক্তচাপে ভুগছেন তাদের জন্য পটাসিয়াম একটি প্রয়োজনীয় পুষ্টি উপাদান। এই খনিজ উপাদানটি শরীরের জন্য খুবই উপকারী। শরীরে পর্যাপ্ত পটাসিয়াম থাকলে তা রক্তনালীর উপর চাপ কমায়।শরীরের অতিরিক্ত সোডিয়ামের পরিমাণ কমাতেও সাহায্য করে পটাসিয়াম। এজন্য খাদ্যতালিকায় পটাসিয়ামসমৃদ্ধ খাবার যোগ করতে হবে। পটাসিয়ামসমৃদ্ধ শাকসবজি:টমেটো, আলু ও মিষ্টি আলু। পটাসিয়ামসমৃদ্ধ ফল:তরমুজ, কলা, অ্যাভোকাডো, কমলা ও অ্যাপ্রিকট।
পটাসিয়ামসমৃদ্ধ অন্যান্য খাবার: বাদাম ও বীজ, দুধ, দই, টুনা ও সালমন।

রক্তচাপ নিয়মিত পরীক্ষা :
নিয়মিত চিকিৎসকের কাছে গিয়ে রক্তচাপ পরীক্ষা করে ঔষধ চালিয়ে যেতে হবে।

উচ্চ রক্তচাপে আক্রান্ত রোগী একেবারে ভালো হন না, কিন্তু উচ্চ রক্তচাপ নিয়ন্ত্রণ করা যায়। এর জন্য নিয়মিত ওষুধপত্র সেবন করতে হবে। কোনো ভাবেই চিকিৎসকের নির্দেশ ছাড়া উচ্চ রক্তচাপে ঔষধ সেবন বন্ধ করা যাবে না। কোন ক্রমে উচ্চ রক্তচাপে ঔষধ বন্ধ করে দিলে রোগী হৃদরাগে আক্রান্ত হয়ে মৃত্যু করতে পারেন।এর জন্য নিয়মিত ওষুধপত্র সেবন করতে হবে।


একটি মন্তব্য পোস্ট করুন

0 মন্তব্যসমূহ